Breaking News

How To Lose Weight Fast



How To Lose Weight Fast ( কিভাবে চটজলদি ওজন কমাবেন )

ওজন কমাতে হিমশিম খাচ্ছেন?  সামনেই পুজো। শপিং করতে গিয়ে মন খারাপ হয়ে গেল আপনার৷  দেখলেন আপনার পুরোনো সাইজের জামা আর গায়ে আঁটছে না। তাই আপনার পছন্দসই জামাটি কিনতে পারলেন না৷ কিন্তু কাকেই বা দোষ দেবেন৷ সারাদিন অফিসে বসে কাজ আর বাইরের জাঙ্ক ফুড খাওয়া৷ মোটা তো হবেনই৷ 

ভাবছেন তো কীভাবে ওজন কমাবেন! ভেবে হিমশিম খাচ্ছেন? খুঁজছেন উপযুক্ত ডায়েট চার্ট? এদিকে আবার ওয়ার্কআউটে বা কোনওরকম কসরত করতেও আপনি নারাজ ৷ অবশ্য সারাদিনের ব্যস্ততার পর জিমে যেতে কারই বা ভালো লাগে ৷তবে মন খারাপ করবেন না৷ কয়েকটি নিয়ম মেনে চলুন তাহলেই কেল্লাফতে৷ 



কিন্তু শুধু খাবারে পরিবর্তন করলে চলবে না। সঠিক ওজন ও সুস্থ শরীর বজায় রাখতে গেলে খাবারের সঙ্গে সঙ্গে বদলাতে হবে খাবারের পরিমান ও খাওয়ার সময়ও।

জেনে নিন সঠিক কিছু নিয়ম 

** সব থেকে প্রথমে ঠিক করুন আপনি কতটা ওজন কমাতে চান ৷ প্রতিদিনের একটি ডায়েট চার্ট বানান৷ ক্যালরি মেপে খান।নির্দিষ্ট সময় সঠিক পরিমাণ খাবার খেলেই রোগা হওয়া থেকে আপনাকে কেউ আটকাতে পারবে না ৷

**  অন্তত ২০ মিনিট ধরে খান। মনে রাখবেন পেট ভরেছে কিনা সেই সিগনাল মস্তিষ্কে পৌঁছতে ২০ মিনিট সময় নেয়।



**  ব্রেকফাস্ট বাদ দেবেন না। ব্রেকফাস্ট দিনের মধ্যে সব থেকে জরুরি ৷ আমরা অনেকেই ব্রেকফাস্ট স্কিপ করি৷ এটা শরীরের পক্ষে খুব ক্ষতিকারক ৷ না খেয়ে রোগা হওয়া যায় না ৷ বরং এতে ফল বিপরীত হয় ৷ সকালে ঠিকমতো না খেলে তার প্রভাব সারাদিনের খিদের ওপর পড়বে। ব্রেকফাস্টই সারাদিনের খিদে নিয়ন্ত্রণ করে।

** ফল বা মিষ্টি জাতীয় খাবার কখনই খাওয়ার পরই বা খাবারের সঙ্গে খাবেন না। ব্রেকফাস্ট বা লাঞ্চ খাওয়ার অন্তত ২ ঘণ্টা পর ফল খান।



** পেট খালি না রাখার চেষ্টা করবেন। প্রত্যেক দু’ঘণ্টা অন্তর অল্প কিছু খাবার খান৷ দেরি করে খাবেন না- দু’বার খাওয়ার মাঝে বেশি সময়ের ব্যবধান ভুঁড়ি বাড়ায়। এতে খিদে বাড়ে। ফলে বেশি খাওয়ার প্রবণতা হয়। দুই থেকে আড়াই ঘণ্টা পর পর কম কম করে খান।

** খাওয়ার পরিমান কমান মানে কম কম পরিমানে খান। যে পরিমান খাবার একবারে খান তা কম সময়ের ব্যবধানে দু'বারে খান। খাবারের পরিমান কমালে খিদে তাড়াতাড়ি পাবে। আবার কম সময়ের ব্যবধানে অল্প অল্প করে খেলে মেদও জমবে না।



** কফি বা চা খেলে চিনি ছাড়া খান৷ চিনি একদম চলবে না। গ্রিন টি খেতে পারলে সব থেকে ভালো ৷ এতে স্কিনও ভালো থাকে ৷

** কোল্ড ড্রিঙ্ক মিষ্টি, আইসক্রিম, চকোলেট একদম স্ট্রিক্টলি বাদ৷ সঠিক খাবার বাছুন। পুষ্টিকর খাবার যেমন ফল, শাকসবজি বেশি খান। বাদ দিন চিপস, মিষ্টি, কোল্ডড্রিঙ্কের মতো খাবার।

** পুরো ভরপেট মানে পেটপুরে খাবেন না। পেট ঠেসে ভরে যাওয়া মানেই আপনি দরকারের থেকে বেশি খেয়েছেন। এতে ফ্যাট জমতে বাধ্য।



** রোজ দই ও স্যালাড খান৷ খিদে পেলে স্যুপ খান৷ এতে পেটও ভরবে অথচ ওজন বাড়ার চিন্তা থাকবে না ৷ জাঙ্ক ফুড এড়িয়ে চলুন।

** ডিনার করার পরই শুয়ে পড়বেন না৷ ডিনার করার অন্তত একঘণ্টা পর ঘুমোতে যাবেন৷

** নুন, সুগার ফ্রি কম খান- নুন বা আর্টিফিশিয়াল সুইটেনার ভুঁড়ি বাড়াতে ওস্তাদ। এগুলো কম খান। 



 ** হালকা শরীরচর্চা করুন। ওজন ঠিক রাখতে রোজ শরীরচর্চা অবশ্যই করুন। হাঁটা বা হালকা ব্যয়ামের নিয়মিত অভ্যাস আপনাকে সুস্থ রাখবে।অফিস যাওয়ার সময় রিক্সার বদলে হেঁটে যান ৷ অফিসে লিফটের বদলে সিঁড়ি ব্যবহার করুন৷ কাজের ফাঁকে গোটা অফিসে একবার হেঁটে নিন ৷
অন্তত ৬ টা মাস নিয়মগুলি মেনে চলুন, তারপর আপনার আয়নাই আপনার তারিফ করবে। আয়নায় নিজেই নিজেকে দেখে মুগ্ধ হবেন আপনি।

No comments